লেখাপড়া শেষে ইউ এস গ্রিন কার্ড – স্বপ্নের সবুজ কাগজ 

Green Card

গ্রিন কার্ড” – কম বেশী আমরা সবাই এই শব্দযুগোল এর সাথে পরিচিত। ইউ. এস. তে লেখাপড়া শেষ করে উন্নত লেবার মার্কেটে কাজ করার জন্য এবং পরবর্তীতে ইমিগ্রেশন এর পথে বেশ গুরুত্বপূর্ণ ধাপ এটি। আমরা এই আর্টিকেলে আজ দেখবো এর পথ-পরিক্রমা এবং আমরা অবশ্যই আশা রাখি বাংলাদেশি গ্রিন কার্ড হোল্ডাররা তাদের কাজের এই অভিজ্ঞতা এক সময় বাংলাদেশ গড়ার জন্য ব্যয় করবেন।


► গ্রিন কার্ড কি?

এটি হল পার্মানেন্ট রেসিডেন্ট কার্ড। ইউ এস তে জীবনযাপন এবং চাকরির সুবিধাদি দিতে এটি ইস্যু করা হয়। এর মেয়াদকাল সর্বোচ্চ ১০ বছর এবং এরপর পুনঃনবায়ন করা যায়।

সবুজ কাগজ পাওয়ার বিভিন্ন উপায় এবং পথ রয়েছে। এখানে আমরা শুধু F1 ভিসাধারীদের নিয়েই কথা বলবো। তো এক বাক্যে, F1 VISA নিয়ে লেখাপড়া শেষ করে F1-OPT VISA এর মাধ্যমে চাকরি খুঁজে এবং পরবর্তীতে চাকরি[F1-OPT to H1B VISA] নিয়ে Employmnet Based- Green Card [যেখানে Employer হল Sponsor]এর জন্য সাধারণত আবেদন করতে হয়। গ্রিন কার্ড পেতে সর্বনিম্ন ১ বছর থেকে সর্বোচ্চ ৫/৬ বছর পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হতে পারে “Immigrant visa backlog” এর কারনে। তবে সাধারণত ২ থেকে ৩ বছরের মাঝে সবাই গ্রিন কার্ড পেয়ে যায় ভাগ্য খুবই খারাপ না হলে।

মজার ব্যাপার হলো, একে গ্রিন বলা হলেও সবসময় এটি গ্রিন ছিলো না। এই সম্পর্কে জানা যায়ঃ
এটা প্রথম 1940 সালে চালু হয় যখন এটা প্লাস্টিক পরিচয় পত্রে ছবির, রেজিস্ট্রেশন নম্বর, জন্ম তারিখ, এবং এন্ট্রি তারিখ  সংযুক্ত কার্ডটি সবুজ রঙ (Green) ছিল।  কার্ডটি ১৯৬০সাল থেকে ১৯৭০ সালে নীল ছিল ও 1980 সাল থেকে সরকার এটি পরিবর্তন করে সাদা করেন ।.গোলাপী হওয়া সত্ত্বেও ১৯৯০ সাল থেকে এটা পরে প্লাস্টিক কার্ড সবুজ কার্ড নামে অভিহিত হয়েছে। তবে ২০১০ থেকে গ্রিন কার্ড আবার তার গ্রিন কালার ফিরে পেয়েছে।

এই কার্ড নিয়ে এত মাতামাতি কেন? হুম… রহস্য এর ক্ষমতায়! এই কার্ড যিনি পাবেন তার প্রাপ্য সুবিধাগুলো হলোঃ

আপনি অভিবাসন আইনের অধীনে যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে পারবে, অপসারণযোগ্য কোন কর্ম না করা পর্যন্ত।
আপনার যোগ্যতা এবং পছন্দসই যে কোনো কাজ করতে পারবেন । (নিরাপত্তার কারণে কিছু কাজ মার্কিন নাগরিকদের মধ্যে সীমাব্দ করা হয়েছে। )
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সব আইন দ্বারা সুরক্ষিত বাসভবন এবং স্থানীয় বিচারব্যবস্থায় আপনি সুরক্ষিত।

মনে রাখবেন: কার্ডটি অবশ্যই আপনার সাথে সাথে রাখতে হবে যদি আপনি ১৮ উর্দ্ধ হন, নতুবা জেল-জরিমানার বিধান রয়েছে। গ্রিন কার্ড নিয়ে পাঁচ বছর[5 years] থাকার পর আপনি ইউ এস সিটিজেনশিপ এর জন্য আবেদন করতে পারবেন।

গ্রিন কার্ড হোল্ডার হিসেবে আপনার কিছু দায়িত্বও আছে, তা হলো:


• সব যুক্তরাষ্ট্রীয়, রাজ্য, এবং স্থানীয় আইন মান্য করা।
• যুক্তরাষ্ট্রীয়, রাজ্য, এবং স্থানীয় আয় ট্যাক্স দিওয়া।
• যদি আপনি বয়সের পুরুষ ১৮ এবং ২৬ এর মধ্যে একটি  সিলেক্টিভ সার্ভিস (মার্কিন ArmedForces) সঙ্গে নিবন্ধন থাকা।
• আপনার অভিবাসন অবস্থা বজায় রাখা।
• Alltimes আপনার স্থায়ী বাসিন্দা অবস্থা প্রমাণ বহন করা।




কিভাবে যুক্তরাষ্ট্র স্টুডেন্ট ভিসার জন্য আবেদন করতে হয়। এই বিষয় জানতে ক্লিক করুনঃ

► পরবর্তি পর্বে জানব লেখাপড়া শেষে ভিসা স্ট্যাটাস কি ভাবে পরিবর্তন করা যায়।

 
Top